ম্যাচ পন্ডের কারণ যখন পিচ

‘পিচ’- ক্রিকেটের সবচেয়ে আলোচিত ও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। হোম অ্যাডভান্টেজ নিয়ে স্বাগতিক দল নিজেদের মতো করে পিচ বানিয়ে ধরাশায়ী করে বিপক্ষকে। পিচের গতিবিধি নির্ধারণ করে ম্যাচের গতিপথ। এসব খেলারই অংশ। যেমনটা মাঝে মধ্যে ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পরিত্যক্ত হতে দেখা যায় বৃষ্টি, ফ্লাডলাইট কিংবা প্রাকৃতিক নানান বিপর্যয়ে। কিন্তু পিচের কারণে? শুনতে অস্বাভাবিক লাগতে পারে। আজ শোনাবো এমন পাঁচটি ম্যাচের কথা যেগুলো বাতিল হয়েছিল ‘ডিউ টু পিচ কন্ডিশন’-এ!

পাঁচ.

গ্ল্যামারগন-নর্থহান্টস :  ২০১৫ সালের আগস্টে কার্ডিফের সোয়াল্ক স্টেডিয়ামে লিস্ট এ’তে মুখোমুখি গ্ল্যামারগন বনাম নর্থহান্টস। ম্যাচ রেফারি পিচ-কে কি বলে আখ্যা দিয়েছিল জানেন? ‘ডেঞ্জারাস পিচ’ বলে! অস্বাভাবিক বাউন্সি আচরণে পিচ আক্ষরিক অর্থেই হয়ে উঠেছিল ভয়ানক।

চার.
ভারত-শ্রীলংকা : ইন্দোর-এর নেহেরু স্টেডিয়ামে ১৯৯৭ সালের ওই ম্যাচ পরিত্যক্ত হয় দুই দলের সম্মতিতে। খেলার স্থায়িত্ব তিন ওভারেরও কম ছিল। এরই মধ্যে শ্রীলংকার ওপেনার মাহানামার কাঁধে আঘাত হানে বোলার শ্রীনাথের একটি ডেলিভারি যা তাকে ফিল্ড আম্পায়ারের কাছে আবেদন করতে বাধ্য করে। ম্যাচ রেফারি প্রথমে খেলা এক ঘণ্টার জন্য স্থগিত রাখেন। এরপর খেলা বন্ধ করে দেয়া হয়। কেন? পিচ এতটাই ক্র্যাকড ছিল যে, ব্যাটিং করা রীতিমতাে দুঃসাধ্য ও বিপজ্জনক হয়ে গিয়েছিল।

তিন.

ভারত-শ্রীলংকা : ২০০৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর। টস জিতে লংকানদের ব্যাটিংয়ে পাঠায় ভারত। এক পর্যায়ে ৮৩ রানে পতন ঘটায় ৫ উইকেটেরও। তবু ম্যাচ বাতিল! দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলা স্টেডিয়াম সেদিন ভরা ছিল এলেবেলে ঘাসের আবরণে। বোলিংটা ঠিকঠাক হচ্ছিল না। সাধারণ ডেলিভারিগুলোও যাচ্ছিল খুব স্লোলি। ক্রিজে থাকা দুই ব্যাটসম্যান জয়াসুরিয়া ও দিলশান কষ্টই পাচ্ছিলেন খেলতে। তাই ম্যাচ অফিসিয়ালরা পরিত্যক্ত ঘোষণা করে দেন খেলা।

দুুুই.
ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ড টেস্ট : অ্যান্টিগার ‘স্যার ভিভ রিচার্ডস ক্রিকেট স্টেডিয়াম’-এ ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম ইংল্যান্ডের সেকেন্ড টেস্টটা খ্যাত ‘শর্টেস্ট টেস্ট ম্যাচ’ হিসেবে! দুই অধিনায়ক গেইল ও স্ট্রাউস-এর সঙ্গে কথা বলে মাঠের দুই আম্পায়ার যখন ম্যাচ বাতিল ঘোষণা করেন তখন স্কোর বোর্ড দেখালো, খেলা হয়েছে মাত্র এক ওভার চার বল! এমনটিই ঘটে ২০০৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে। খেলার মাত্র দ্বিতীয় বলের পর আঘাত হানে বৃষ্টি। ২০ মিনিট বন্ধ থেকে আবার খেলা মাঠে গড়ানোর পর আউট ফিল্ড যেন পরিণত হয় বালির আচ্ছাদনে যা বোলারদের বোলিংয়ে সমস্যা হতে পারতো। তাই তাদের নিরাপত্তা বিবেচনায় এনে ম্যাচ অফিসিয়ালরা খেলা চালিয়ে যাননি। শুধু তা নয়, এমন কাণ্ডের পর এ মাঠে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনে স্থগিতাদেশ জারি করে আইসিসি!

এক.
ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ড : ১৯৯৮ সালের ২৯ জানুয়ারি। টেস্ট ক্রিকেটে নজিরবিহীন একটি দিন। সেদিনই প্রথমবার পরিত্যক্ত হয় কোনো ম্যাচ তাও পিচের কারণে! প্রথম পরিত্যক্ত হওয়া ম্যাচের সঙ্গেও জড়িত ওয়েস্ট ইন্ডিজ-ইংল্যান্ডের নাম। জ্যামাইকার স্যাবাইনা পার্কের ক্রিকেট গ্রাউন্ডে দুই দলের দলপতি ও ম্যাচ রেফারির সঙ্গে কথা বলে দায়িত্বরত আম্পায়ার স্টিভ বাকনার এবং এস ভেংকটরাঘবন মিলে বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় ম্যাচের বয়স সবে ১০ ওভার এক বল! ইংলিশদের সংগ্রহ তিন উইকেট হারিয়ে ১৭ রান। ওই সময়ের পত্রপত্রিকায় বিশেষজ্ঞজনরা ওই পিচকে আখ্যা দিয়েছিলেন ‘নিকৃষ্ট পিচ’ হিসেবে! খেলার জন্য একেবারেই অনুপযোগী এমন পিচের ব্যর্থতার দায়ভার নিজের কাঁধে নিয়ে তৎকালীন ক্যারিবিয়ান ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি প্যাট রোসেয়িও রাজ্যবাসীর পক্ষ থেকে ক্ষমা চেয়েছিলেন সবার কাছে।



এ সংবাদটি 297 বার পড়া হয়েছে.

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here